অ্যানালগ ব্যবস্থাপনায় ডিজিটাল মেলা শুরু

আল আমিন রাজু, ঢাকাঃ

দেশের তথ্য প্রযুক্তি খাতের সবচাইতে বড় আয়োজন ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড উদ্বোধন হলো আজ। নামে ডিজিটাল হলেও এবারের মেলায় ব্যবস্থাপনা নিয়ে অনেকেই প্রশ্ন তুলেছেন। আর এই আয়োজনের ব্যবস্থাপনাকে ম্যানুয়াল ব্যবস্থাপনা হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন দর্শনার্থীরা।

মেলায় আগত দর্শনার্থীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, মেলায় রেজিস্ট্রেশন করে প্রবেশ করতে হবে। কিন্তু তারা এসে দেখতে পান মেলার প্রবেশদ্বার সকলের জন্য উন্মুক্ত। তাহলে কেন এই রেজিস্ট্রেশন নামের পর্বটি চালু করা হয়েছে সেই বিষয়েও প্রশ্ন তুলে অনেকে।

মোহাম্মদপুর থেকে আগত রায়হান নামের শিক্ষার্থী হাতেখড়িকে বলেন, রেজিস্ট্রেশন করে এসে এন্ট্রি কোড দিয়ে প্রবেশ পত্র সংগ্রহ করার জন্য লাইনে দাঁড়িয়েছিলাম। তবে লাভ হয়নি। কারণ, কিছুক্ষণ পরেই শুরু হয়ে যায় বিশৃঙ্খলা, ভাংচুর। দীর্ঘ সময় লাইনে দাঁড়িয়েও কার্ড না পাওয়ায় উত্তেজিত দর্শনার্থীরা নিবন্ধন বুথ সহ কম্পিউটার ভাংচুর করে। এছাড়াও সম্মেলন কেন্দ্রের ভেতরে চলন্ত সিঁড়িও ভাংচুর করে তারা।

ডিজিটাল মেলায় অ্যানালগ ব্যবস্থাপনা

এদিকে নারীদের প্রবেশের জন্য বিশেষ কোন ব্যবস্থা না থাকায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন। সামিয়া রহমান হাতেখড়িকে বলেন, প্রবেশ গেটে নারীদের জন্য আলাদা গেটের ব্যবস্থা রাখা দরকার ছিল। কারণ একেতো রোদে দাঁড়িয়েছিলাম এরপর আবার এতো ছেলের ভিড়ে ধাক্কাধাক্কি করে ঢুকলাম। অনেককে দেখেছি চলে যেতে। সঠিক ব্যবস্থাপনা করা হলে এই সমস্যা পোহাতে হতো না।

এদিকে ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডের অন্যতম আকর্ষণ রোবট মানবী সোফিয়াকে নিয়ে একটি বিশেষ সেশন ‘টক উইথ সোফিয়া’য় অংশ নিতে আগে থেকেই নিবন্ধন করেছিল দুই হাজার দর্শনার্থী। তবে আয়োজন শুরুর ঘণ্টাখানেক আগে থেকেই এই সেশনে অংশ নিতে উপস্থিত হয় ধারণ ক্ষমতার চেয়েও কয়েক গুন দর্শনার্থী। এসময় দর্শনার্থীদের সাথে নিরাপত্তা কমীদের বাকবিতন্ডা এবং হাতাহাতির পর্যায়ে চলে যায়। এরপর নিবন্ধিত দর্শনার্থীদের পাশাপাশি অনিবন্ধিত দর্শনার্থীরাও ঢুকতে থাকে হল অব ফেমে যেখানে সোফিয়ার সেশনটি অনুষ্ঠিত হয়।

এদিকে মেলায় আগত একজন দর্শনার্থী জানান, বুথের কাছে ধাক্কাধাক্কির মধ্যেই বিদ্যুতের তার শর্ট সার্কিট হয়ে সেখানে আগুন ধরে যায়। তবে দ্রুতই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়।  পুলিশের দায়িত্ব নিয়েও প্রশ্ন তুলেন অনেকে।

দীর্ঘ সময় ভিড়ের মধ্যে থেকেও অনেকেই প্রবেশ করতে না পাওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। আয়োজক কর্তৃপক্ষ থেকে আমন্ত্রন প্রাপ্ত একজন দর্শনার্থী নাম না প্রকাশ করা শর্তে বলেন, ‘সোফিয়াকে নিয়ে যেরকম হুজুগ ছিল, তাতে আয়োজকদের আগে থেকেই বোঝা উচিত ছিল এখানে বিপুল সংখ্যক মানুষের আগমন ঘটবে।

সে হিসেবে যথাযথ ব্যবস্থাপনার অভাব লক্ষ্য করা গেছে। এতো বড় একটি আয়োজনে এমন অব্যস্থাপনা সত্যিই দুঃখজনক।’ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সাদিক আহমেদ বলেন, এন্ট্রি যেহেতু আগে থেকেই রেজিস্ট্রেশন করা ছিলো, তাহলে ই-টিকেটিং করা যেত। আমাদের দেশে কিন্তু ইতিমধ্যেই ই-টিকেটিং এর মাধ্যমে অনেক অনুষ্ঠান হয়। যেখানে আগে রেজিস্ট্রেশন করে দর্শনার্থীরা নিজেরাই টিকেট প্রিন্ট করে নিয়ে আসে। আর গেটে শুধু স্ক্যান করেই প্রবেশ করে। এখানেও এই সুবিধা চালু করলে হয়তো আজকের এই অব্যবস্থপনাটা হতো না।

Login

Welcome! Login in to your account

Remember me Lost your password?

Lost Password